দুটি কবিতা /পলাশ বন্দ্যোপাধ্যায়

দুটি কবিতা 
পলাশ বন্দ্যোপাধ্যায়


দ্বৈত সত্তা

যে কথা বলতে বোধ, সাধ নিশপিশ।
সে কথা লুকিয়ে মনে শুধু ফিসফিস-
করি না।
বাচালতা বলে যাকে, অবোধ, আনাড়ি।
না শোনার ভানে তাকে মুছে দিতে পারি।
দ্বিধায় কখনো পড়ি না।

যাতে হতে প্রতিবাদী, বেপরোয়া হলে।
কখনো যখন কেউ ,দেখে নেবে বলে।
হাসি।
এ রকম কত 'দেখা' এসেছি পেরিয়ে!
রাগে রাগে, অথবা সে রাগকে এড়িয়ে।
উল্টো হাঁটাকে ভালোবাসি।

কখনো প্রচারলোভী, প্রচারের ঝোঁকে।
বোকা বোকা অভিলাষী মিথ্যে গুলোকে।
বলে।
আমি বলি, কানে খাটো, শুনিনা তো কিছু।
তবুও যখন তারা চলে পিছু পিছু।
বসি নাক উঁচুদের দলে।

স্বাধীনতা, মাঝেমাঝে  হয় এলোমেলো।
যখন হিসেব কষে, প্রতিভা কি পেলো,
ভাবি।
তারপর বোধোদয় , মন বলে, ওহ!
সব কিছু পেতে হবে, এত কেন মোহ?
এত কেন অনুযোগ, দাবি?

লজ্জায় মুখ ঢাকে ভাবনার রেশ।
যাতে কড়া শাসনের অবাধ প্রবেশ।
তাতে।
শপথের মশালেরা আগুনের তেজে।
চিরসুখী হয়ে নাচে ভগবান সেজে।
মানবিকতা, সে ওঠে জাতে।

সব মিলে খাসা আছি, এত কিছু নিয়ে।
সাদা কালো সত্তাকে ভাঙিয়ে রাঙিয়ে।
রোজ।
অধিকারে গান গাওয়া, অধিকারে চুপ।
নিজের মনের প্ৰতি নিজেই বিরূপ-
হওয়া, সবথেকে তা সহজ।

তবুও, ভাবলে কেউ, বুকে নেই পাটা।
নেব না হালকা চালে সেই ঘটনাটা।
ক্রোধ-
ঘুম থেকে উঠে রেগে চিৎকার করে।
দাপাদাপি এ বেচারা মনের ভিতরে।
কার প্ৰতি নেবে প্রতিশোধ?

যা কিছু পাওয়ার ছিল পেয়ে গেছি তা কি?
না কেতাবি বাঁকা পথ দিয়ে গেছে ফাঁকি?
তাই।
বুকের ভিতর বাজা দামামার ক্ষত।
যুদ্ধের সাজে সেজে মরে অবিরত।
কেন?  কোনো উত্তর নাই।





 কথা

বলতে চাই না যা যা বলা হয় সবই, আর
বলতে যা চাই, সবই বিঁধে থাকে বুকে।
কখনো কথারা তাতে, ডানা মেলা পাখি,বাকি-
অবসরে তারা শুধু গভীর অসুখে।

আমার ভাষার সাথে খুনসুটি করে আমি
যত ভাবি তাকে দেব অনাবিল খুশি।
তত সে অবুঝ হয়ে এলোমেলো পথে হাঁটে
তার সেই চলা আমি  ক্ষত মনে পুষি।

যা ভাবি, হৃদয় জানে, অভিমানী ভালোবাসা,
আসলে সে জানে না তা নেহাতই অবোধ।
ফলত বিপন্নতা জোটে শুধু তাকে নিয়ে
তার তুঘলকিরাজে অনাদায়ী ক্রোধ।

খুটিনাটি সাধ, যারা পেতে চায় ভালোবাসে
আমিও তাদের দলে স্বপ্নালু মোহ।
স্বপ্ন ,সে ভাঙে শুধু, অছিলা ও অজুহাতে
ভালোবাসা, তার জোটে মেকি বিদ্রোহ।

যে কথা কথার কথা, অনবরত তা বলি,
যে কথাতে গভীরতা, বলা থাকে বাকি।
এখনো হয়নি শেখা সুখে থাকা বলে কাকে
কাকে বলে খেয়ে পরে বাঁচা টুকিটাকি।

বলে ফেলি সবকিছু, বলতে চাই না যা যা,
যা যা চাই, অভিমানে বুকে থাকে বিঁধে।
আসলে বোঝার দোষ, তাতে শুধু আফসোস,
যা সুবিধে ছিল, তারই মরে গেছে খিদে।।

জ্বলদর্চি পেজে লাইক দিন👇
আরও পড়ুন 

Comments

Post a Comment

Trending Posts

ছোটোবেলা বিশেষ সংখ্যা -১০৯

‘পথের পাঁচালী’ এবং সত্যজিৎ রায় : একটি আলোচনা/কোয়েলিয়া বিশ্বাস

প্রাচীন বাংলার জনপদ /প্রসূন কাঞ্জিলাল

সনাতন দাস (চিত্রশিল্পী, তমলুক) /ভাস্করব্রত পতি

পুঁড়া পরব /ভাস্করব্রত পতি

পতনমনের ছবি /শতাব্দী দাশ

সর্বকালের প্রবাদপ্রতিম কবিসত্তা শক্তি চট্টোপাধ্যায় /প্রসূন কাঞ্জিলাল

বাংলা ব্যাকরণ ও বিতর্কপর্ব ১৮/অসীম ভুঁইয়া