ভোলগার দিনকাল / বিজন সাহা

ভোলগার দিনকাল 

বিজন সাহা


(১) 
সাদাকালো শাড়ি পরে
বার্চগুলো নাচছে
তা দেখে শেয়ালছানা মিটিমিটি হাসছে
 
(২)
ভোলগার শীতল জলে
সূয্যি মামা দিল ডুব
সারাদিন টো টো করে সে এখন ক্লান্ত খুব

(৩) 
গাছের ডালে ডালে
জেঁকে বসে বসন্ত
রূপেতে বসন্ত সত্যিই অনন্ত

(৪)
কপি পেস্ট ভালোবাসা
আনন্দ বেদনা আশা
কপি পেস্ট হ্যালো সুপ্রভাত
কপি পেস্ট লেখাপড়া
স্বপ্নের জীবন গড়া
কপি পেস্টে কাটে দিন রাত

(৫)
মেঘের পাখায় ভর করে
জল আকাশে উড়ে
সূর্যের তেজে কান্না হয়ে
পৃথিবীতে পড়ে

(৬)
ভোলগার কালো জলে
মাছ দেখ নাচছে
তাই দেখে হাঁসা হাঁসি  মিটি মিটি হাসছে 

(৭)
ফাঁকিবাজ সূর্যটা 
লুকোচুরি খেলছে
তাই দেখে মেঘ বালিকা ডানা দুটো মেলছে 

(৮) 

ভর দুপুরে হাজার মানুষ
ভোলগার জলে নাইছে
আপন মনে বুড়ো জেলে নৌকখানি বাইছে 

(৯) 

জাহাজ চলে উজান ভাটি
সঙ্গে মানুষ ঘোড়া হাতি
নদীর ধারে মানুষ নেড়ে হাত 
জানায় তাদের ভালবাসা 
জাগায় প্রাণে নতুন আশা 
একটু হাসি চোখাচোখি তাতেই বাজি মাত  

(১০) 

আমাদেরই গাঁয়ের ভেতর ভোলগা নদী বয় 
বরফের নীচে কাটে তার অর্ধেক সময় 
গ্রীষ্ম কালে রোদের ডাকে ভাঙলে তার ঘুম 
ছেলে বুড়ো সবার পড়ে সাঁতার কাটার ধুম


জ্বলদর্চি পেজে লাইক দিন👇

Comments

Trending Posts

‘পথের পাঁচালী’ এবং সত্যজিৎ রায় : একটি আলোচনা/কোয়েলিয়া বিশ্বাস

সনাতন দাস (চিত্রশিল্পী, তমলুক) /ভাস্করব্রত পতি

সর্বকালের প্রবাদপ্রতিম কবিসত্তা শক্তি চট্টোপাধ্যায় /প্রসূন কাঞ্জিলাল

ছোটোবেলা বিশেষ সংখ্যা ১১০

শঙ্কুর ‘মিরাকিউরল’ বড়িই কি তবে করোনার ওষুধ!/মৌসুমী ঘোষ

বাংলা ব্যাকরণ ও বিতর্কপর্ব ১৮/অসীম ভুঁইয়া

প্রাচীন বাংলার জনপদ /প্রসূন কাঞ্জিলাল

রাষ্ট্রীয় মূল্যায়ন ও স্বীকৃতি পরিষদ (NAAC) এর মূল্যায়ন ও স্বীকৃতি: উদ্দেশ্য ও প্রস্তুতি - কলেজ ভিত্তিক অভিজ্ঞতা /সজল কুমার মাইতি