বন্ধ্যাকাল /পলাশ বন্দ্যোপাধ্যায়


বন্ধ্যাকাল

পলাশ বন্দ্যোপাধ্যায়


আজকাল যা লিখি তা সব কেটে দিই।

এখন যা মনে হয়, ঠিক।
পরক্ষণেই দেখি ভুল।
মন সে দুবিধা নিয়ে 
অবিরল ভেবেই আকুল।

আমিও মনের সাথে 
দুখবাহী হতে হতে
তার কিছু ভাগ করে নিই।

যা লিখি
তা সব কেটে দিই।

কাটা কবিতারা বাঁচে ফের।

ফিনিক্স পাখির মতো বলে,

এভাবে কখনও কেউ মরে?
তুসের জ্বলন সয়ে-
হৃদয়ের আঁধার জঠরে?

তারা শ্বাস নেয় অবিরত।
কেটে দিস তাকে যদি,
স্বীকার না করলেও-
মেরে ফেলা সহজ কি অত?

তার কথা শুনে কেঁপে কেঁপে,
লজ্জার নরম হৃদয়।
চুপি চুপি কবি-কানে বলে,
না কেটে পুড়িয়ে দিতে হয়, 
অতীতের জ্বালা।

নইলে আবার ঠিক 
চেপে বসে হয়ে ফুলমালা-

গলার উপরে।
কবিতার মন্বন্তরে।

....ঠিক এর পর থেকে
পাল্টেছি সব রীতিনীতি।

বাঁচতে তাদের থেকে সব ভয়ভীতি-
পুড়িয়েছি আগুনের তেজে।

সাম্রাজ্যবাদীর ভক্তের সহকারী সেজে।

করেছি কি  ভুল?
উত্তর দিও জ্ঞানীগুণী।
জবাবী ভরসা পেতে
হয়ে আছি নিথর আকুল।

 
পেজে লাইক দিন👇


Comments

Popular posts from this blog

মেদিনীপুরের বিজ্ঞানীদের কথা

মেদিনীপুরের চোখের মণি বিজ্ঞানী মণিলাল ভৌমিক /পূর্ণচন্দ্র ভূঞ্যা

মেদিনীপুরের রসায়ন বিজ্ঞানী ড. নন্দগোপাল সাহু : সাধারণ থেকে অসাধারণে উত্তরণের রোমহর্ষক কাহিনী /পূর্ণচন্দ্র ভূঞ্যা

মেদিনীপুরের পদার্থবিজ্ঞানী সূর্যেন্দুবিকাশ কর মহাপাত্র এবং তাঁর 'মাসস্পেকট্রোগ্রাফ' যন্ত্র /পূর্ণচন্দ্র ভূঞ্যা

ঋত্বিক ত্রিপাঠী / আত্মহত্যার সপক্ষে

রাষ্ট্রীয় মূল্যায়ন ও স্বীকৃতি পরিষদ (NAAC) এর মূল্যায়ন ও স্বীকৃতি: উদ্দেশ্য ও প্রস্তুতি - কলেজ ভিত্তিক অভিজ্ঞতা /সজল কুমার মাইতি

আসুন স্বীকার করি: আমরাই খুনী, আমরাই ধর্ষক /ঋত্বিক ত্রিপাঠী

শ্রেণি বৈষম্যহীন সমাজই আদর্শ সমাজ 'কালের যাত্রা' নাটকের শেষ কথা/সন্দীপ কাঞ্জিলাল

অংশুমান কর

প্রাচীন বাংলার জনপদ /প্রসূন কাঞ্জিলাল