লোককথা -বোকা তাঁতি- ৭

লোককথা- বোকা তাঁতি - ৭

সু ব্র ত কু মা র মা ন্না   

বােকা খেতে পেল না

পাশের গ্রামেই বােকা তাঁতির ধূর্ত নাপিত বন্ধু বসবাস করত। একদিন তারা দুজনে ঠিক করলাে তারা ভ্রমণে বেরােবে। তারা ভ্রমণের জন্য প্রস্তুতি নিতে লাগল। ভ্রমণে বেরােলে তাে কিছু খাবার সঙ্গে নিতে হবে। এই ভেবে তারা নিজেদের বাড়ি থেকে কিছু খাবার সঙ্গে নিয়ে ভ্রমণে বেরিয়ে পড়লাে। তাঁতির বাড়িতে কিছু গমের ছাতু ছিল তাঁতি তাই নিল,নাপিতের কিছু ছিল না। তাই নাপিত কিছু ধান নিল।

পথে হাঁটতে হাঁটতে দুজনেরই ভীষণ খিদে পেল। ধূর্ত নাপিত তাঁতিকে জিজ্ঞাসা করল, তাের কাছে কি আছে? তাঁতি বললাে, - "ছাতু আছে। নাপিত
বললাে আমার কাছে ধান আছে।

ধূর্ত নাপিত মনে মনে চিন্তা করলাে ধান থেকে ভাত বা মুড়ি পেতে অনেক দেরি হবে। আর ছাতুতাে সহজেই খাওয়া যাবে। তাই বােকা তাঁতিকে ধান দিয়ে সে নিজে তাঁতির ছাতু নিয়ে বললাে - "ধান ভাঙলেই ভাত, আর তােমার এই ছাতু খেতে হলে অনেক কষ্ট করতে হবে। ছাতুরে-লাতুরে-গুলােরে খাওরে। কত কষ্ট করে তবে ছাতু খাওয়া যাবে।

ধূর্ত নাপিত সেই ছাতু নিয়ে জল দিয়ে খেয়ে নিলাে। বােকা তাঁতি সেই ধান নিয়ে গ্রামের বাড়িতে ফিরে এলাে। কোথাও আর ধান ভাঙা হলাে না।

বােকা তাঁতি খেতেও পেল না।

Comments

Trending Posts

মেদিনীপুরের কৃষিবিজ্ঞানী ড. রামচন্দ্র মণ্ডল স্যারের বর্ণময় জীবনের উত্থান-পতনের রোমহর্ষক কাহিনী /উপপর্ব — ০১ /পূর্ণচন্দ্র ভূঞ্যা

ছোটোবেলা বিশেষ সংখ্যা ১১১

‘পথের পাঁচালী’ এবং সত্যজিৎ রায় : একটি আলোচনা/কোয়েলিয়া বিশ্বাস

ড. সুকুমার মাইতি (গবেষক, শিক্ষক, প্রত্ন সংগ্রাহক, খড়গপুর)/ভাস্করব্রত পতি

প্রাচীন বাংলার জনপদ /প্রসূন কাঞ্জিলাল

শিবচতুর্দশী /ভাস্করব্রত পতি

রাষ্ট্রীয় মূল্যায়ন ও স্বীকৃতি পরিষদ (NAAC) এর মূল্যায়ন ও স্বীকৃতি: উদ্দেশ্য ও প্রস্তুতি - কলেজ ভিত্তিক অভিজ্ঞতা /সজল কুমার মাইতি

জঙ্গলমহলের 'জান কহনি' বা ধাঁধা /সূর্যকান্ত মাহাতো