আষাঢ়ে গল্পের আল ধরে /পর্ব ২০ /তন্দ্রা ভট্টাচার্য

আষাঢ়ে  গল্পের আল ধরে 

পর্ব ২০
তন্দ্রা ভট্টাচার্য 


 " আমার  মন কেমন করে কে জানে কাহার তরে"

মন এক অদ্ভুত  জিনিস সত‍্যিই আমি  বুঝে উঠতে পারিনা নিজেই জানিনা কার জন‍্য কেন মন খারাপ করে,  মহা মুশকিল  তো মন নিয়ে!  টেলিপ‍্যাথি বলে একটা জিনিস আছে  এক আত্মা আর এক আত্মাকে টাচ করতে পারে। সন্তানের  মন খারাপ  করলে দূরে বসে মায়ের  মন খারাপ করে। প্রেমিকের জন‍্য ব‍্যাকুল প্রণয়য়িনী, প্রেমিকও অস্থির পাগলপারা হয়ে ওঠে।মন হাওয়ার আগে দৌড়াতে  পারে। ইচ্ছে করলেই সারা পৃথিবী  ঘুরে নিতে পারে কয়েক ঘন্টায়। মনে মনে আমরা অনেক  জাল বিছাতে পারি। মন দিয়ে যা কিছু  করি তাই প্রাণ পায় সেই  কাজ সফল হয়।

"কুসুম নিঃশ্বাস ফেলিয়া বলিল, আপনার  কাছে দাঁড়ালে আমার  শরীর এমন করে কেন ছোটবাবু?

শরীর। শরীর। তোমার  মন নাই কুসুম"  পুতুলনাচের ইতিকথার এই সেই  বিখ্যাত  উক্তি। সত‍্যিই তো প্রেম কি কেবল শরীরে? প্রেমের আবাসভূমি তো হৃদয়ের গভীরে।  মন যদি  স্থান দেয় তবেই তো শরীর  কথা বলবে। 

" ভেবে নিয়েছ? অগ্রপশ্চাৎ বিবেচনা করেছ?" এখনও ব‍্যাক-আউট করার সময় আছে? কাতর কন্ঠে কীর্তি  বললে, "সমস্ত রাত ভেবেছি। কিন্ত কথাগুলো   গুছিয়ে উঠতে পারিনি। আর ভয়ও করছে "। (রচনাবলী সৈয়দ মুজতবা আলী  খন্ড ছয়, পাতা 31)  এই ভাবনা চিন্তা  কে করে?  আমাদের  মনই তো  সচেতনভাবে কিংবা অবচেতন মনে। আমাদের  মন সারাক্ষণ চিন্তা  করতে থাকে। কোনো না কোনো ঘটনাকে    ভাবতে থাকে। সুখ,দুঃখ, বিরহ, ব‍্যথা মনের বিভিন্ন  পরিস্থিতি এক এক সময় এক এক ভাবে ক্রিয়া করে।  মন আর মনের পরিস্থিতি  এবং আমাদের  মানসিকতার  উপর দাঁড়িয়ে  আছে সমাজ সংসার। 

            I think therefore i am

  ফরাসি দার্শনিক  রেনে ডেকার্তের বিখ‍্যাত উক্তি।

আমার  অস্তিত্বের জানান দেয় আমার  অনুভব।

I love you এই বাক‍্যটি কাউকে বললাম না তবুও  সে বুঝে গেল আমি  তাকে ভালোবাসি। কিন্তু  প্রশ্ন জাগে সে কি করে বুঝল? তার অনুভবে, তার চিন্তায় এই বোধ হয়েছে যে আমি  তাকে ভালোবাসি। তৈরী হয়েছে দুই হৃদয়ের মধ‍্যে  অদৃশ্য এক বন্ধন।  আমার  অস্তিত্বের যে যে কাজ সেই  ব‍্যক্তিকে অণুপ্রাণিত করবে এবং  প্রমাণ  করবে আমি  তাকে ভালোবাসি।  আমাদের  ব্রেণ তো কখনোই চুপ করে থাকেনা, সে কিছু না কিছু চিন্তা করে। স্থান কাল পাত্র ভেদে চিন্তার পরিসর বা ভাবনা গুলো বিভিন্ন রকম হয়।

"প্রেম  এসেছিল নিঃশব্দ  চরণে তাই স্বপ্ন মনে হল তারে দিই নি তাহারে আসন " 

 রবীন্দ্রনাথের প্রেমের এই গানটি কেমন বুকের ভেতর মোচড় দেয়। প্রেম অনুভবে ধরা দেয়। তাকে হৃদয়ে সযত্নে আসন পেতে দিতে হয়।প্রেমকে অবহেলা করার সময়  আমরা বুঝতে পারিনা। যেন মনে হয়  নিজের হাতে একটি তাজা গোলাপ কে ছিঁড়ে ফেলে দিলাম। প্রেম যখন বিদায় নেয় তখন  সাংঘাতিক ভাবে জানান দেয়। হৃদয়  টুকরো টুকরো হয়ে ভেঙে যায়  সে আর ফেরে না।


"ভালোবেসে সখী  নিভৃত যতনে আমার  নামটি লিখো তোমার  মনেরও মন্দিরে"।

মনের আর এক নাম মন্দির সেখানেই  তো

 হৃদয়- দেবতার বাস। রাধার অন্তরেই তো আছেন কৃষ্ণ। শ্রীরাধিকা হলেন কৃষ্ণের আরাধিকা। রাধা নামেই কৃষ্ণের মুক্তি।

" জবাবে চোখ বুঁজে বলে ফেলেছিলাম__ আমি  তোকে চাই লালী।বল কেমন  করে তোকে পাব?

আমাকে পেতে হলে তোকে দেউড় বাঁশের জঙ্গল পেরোতে হবে।

তার মানে?

লালী বলেছিল_ ওটা আমার  শর্ত। ঐ যে বাউড়ের মুখে কাঁটা ভরা বাঁশের জঙ্গল আছে, ওটার পুবধারে তোর জন‍্য অপেক্ষা করব।তুই পশ্চিম থেকে  ঢুকবি পেরিয়ে গেলেই আমাকে পেয়ে যাবি"

(পাতা 163  শ্রেষ্ঠ গল্প সৈয়দ মুস্তাফা সিরাজ)

বাবারে বাবা মন পেতে গেলে কত কষ্ট যে করতে মানুষ কে! মন এক জটিল যন্ত্র।

মনকে সব সময় ভালো  রাখতে হবে, সজীব রাখতে হবে।" কাম কাঞ্চনে মন মলিন হয়ে আছে, মনে ময়লা পড়ে আছে।ছুঁচ কাদা দিয়ে ঢাকা থাকলে আর চুম্বক টানেনা" বল "হে ঈশ্বর আর  আমি  অমন করব না"  "অনুতাপে কাঁদ ময়লা টা ধুয়ে যাবে " (351 পাতা "পরমপদকমলে"  সঞ্জীব চট্টোপাধ্যায় )। পরম ঠাকুর শ্রীশ্রী রামকৃষ্ণের বাণী, তিনি বারবার  মনের ময়লা পরিষ্কারের কথা বলেছেন। সৎ চিন্তা শুদ্ধ চিন্তা না করলে কখনোই মনকে ভালো রাখা যায় না। সব হৃদয়ের মাঝে নারায়ণ আছেন যে নামেই ডাকো তাকে আল্লাহ্, গড তিনি আমাদের  বুকের মাঝেই  বসে আছেন। 

আমরা যাকে ভালোবাসি যাকে ঘৃণা  করি আমরা কিন্তু  দুই ব‍্যক্তিরই স্বপ্ন দেখি।ভলো এবং  খারাপ  দুই আমাদের  মনের মধ‍্যে বাস  তাই আমাদের  সুখ এবং  দুঃখ  এই সব অনুভব কে নিয়েই আমাদের  চলতে হয়। স্বপ্নেও আমাদের  অবচেতন মন ক্রিয়া করে। ফ্রয়েড বলেন মানব মনের প্রায় নব্বই  শতাংশ অবচেতন অবস্থায় থাকে বাকি দশ শতাংশ  সচেতন থাকে।  

" কে জানে, মনের ভিতরে, অনেক  গভীরে কিছু  রয়ে গেছে কি না। আকাশের  ভিতরে আবার আকাশ, তার ভিতরেও আবার আকাশ, মনও কি তেমনই, মনের ভিতরে মন,  তার ভিতরে আর একটা, তার ভিতরে আবার ( "পাউডার কৌটোর টেলিস্কোপ"   স্বপ্নময় চক্রবর্তী )।

মনই আমাদের  বৃন্দাবন আবার মনই আমাদের সবচেয়ে জঘন্য জিনিস। আসলে  মন একটি জিজ্ঞাসা  চিহ্নের নাম।

পেজে লাইক দিন👇

Comments

  1. খুব ভালো লাগলো। এবং একটি চিরন্তন দীর্ঘ প্রশ্ন নিয়ে এই আলোচনা। "----- তোমার মন নাই কুসুম?" আবারও বলি তাই।

    ReplyDelete

Post a Comment

Trending Posts

ড. সুকুমার মাইতি (গবেষক, শিক্ষক, প্রত্ন সংগ্রাহক, খড়গপুর)/ভাস্করব্রত পতি

‘পথের পাঁচালী’ এবং সত্যজিৎ রায় : একটি আলোচনা/কোয়েলিয়া বিশ্বাস

রাষ্ট্রীয় মূল্যায়ন ও স্বীকৃতি পরিষদ (NAAC) এর মূল্যায়ন ও স্বীকৃতি: উদ্দেশ্য ও প্রস্তুতি - কলেজ ভিত্তিক অভিজ্ঞতা /সজল কুমার মাইতি

প্রাচীন বাংলার জনপদ /প্রসূন কাঞ্জিলাল

খাঁদারাণী, তালবেড়িয়া, মুকুটমণিপুর ড্যামের নির্জনতা ও 'পোড়া' পাহাড়ের গা ছমছমে গুহা /সূর্যকান্ত মাহাতো

বাংলা ব্যাকরণ ও বিতর্কপর্ব ১৮/অসীম ভুঁইয়া

ছোটোবেলা বিশেষ সংখ্যা ১১০

সুন্দরবনের উপর গুচ্ছ কবিতা/ওয়াহিদা খাতুন