অক্ষয়তৃতীয়া -- ভারতের এক নিজস্ব সাংস্কৃতিক উপচার/ভাস্করব্রত পতি

অক্ষয়তৃতীয়া -- ভারতের এক নিজস্ব সাংস্কৃতিক উপচার

ভাস্করব্রত পতি

অক্ষয়তৃতীয়া এলেই দোকানে দোকানে দোকান পূজোর ধুম পড়ে। যাঁরা পয়লা বৈশাখের দিন হালখাতা করতে পারেননা, তাঁরা অক্ষয়তৃতীয়ার দিনে লক্ষ্মী গনেশের পূজো সহকারে হালখাতার আয়োজন করে। আমন্ত্রনপত্রে লেখা থাকে 'শুভ অক্ষয়তৃতীয়া'। অশৌচ অবস্থা থেকে মুক্তি লাভের জন্য গঙ্গাস্নানে ভিড় হয় এদিন। ফলহারিণী কালিপূজায় প্রতিমার মেড় বাঁধার কাজও শুরু হয় এই দিনেই। এসব তো বাংলার সংস্কৃতি। বাঙালির সংস্কৃতি। আজকের কোরোনা আবহেও প্রজ্জ্বল্যমান এই চিরকালীন ভারতীয় সংস্কৃতিটি।

  অক্ষয়তৃতীয়ার দিনেই শ্রীকৃষ্ণ পরশুরাম রূপে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তাই কোঙ্কন ও মালাবার উপকূলে এদিনেই পরশুরামের পূজার্চনা করার রীতি রয়েছে। ব্যাসদেব অক্ষয়তৃতীয়াতেই শুরু করেন 'মহাভারত' লেখার কাজ। আর মহাভারত অনুসারে শ্রীকৃষ্ণ কৌরবদের হাত থেকে দ্রৌপদীর বস্ত্রহরণের মর্যাদা রক্ষা করেছিলেন। আজকেই সমুদ্রের বুক থেকে জমি উদ্ধার করে ছিলেন এই শ্রীকৃষ্ণ। আজকের পবিত্র দিনেই ত্রেতাযুগের সূত্রপাত। তবে হরিচরণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের মতে, এটি নাকি সত্যযুগের প্রথমদিন। দেবাদিদেব মহাদেবকে তপস্যায় সন্তুষ্ট করলে মহাদেব কুবেরকে অজস্র ধন সম্পদের অধিকারী করে দেন আজকেই। তাই ধনসম্পদের দেবতা হিসেবে আরাধনা করা হয় কুবেরকে। প্রভু ঋষভ নাকি তাঁর এক বছরের উপবাস ভেঙেছিলেন আখের রস খেয়ে। তাই জৈন ধর্মের মানুষজন ঋষভদেবের মূর্তিটিকে এদিন স্নান করান আখের রস দিয়ে। জীবনের যেকোনো নতুন উদ্যোগের শুভ সূচনার জন্য এই অক্ষয়তৃতীয়াকেই বেছে নিতে চায় সকলেই। এখন অবশ্য সোনা কেনার একটা চল শুরু হয়েছে শুভ প্রাপ্তিযোগ লাভের আশায়। 

  অক্ষয়তৃতীয়া হল দেবী অন্নপূর্ণার জন্মদিন। মানুষ যাতে সারাবছর খেয়ে পরে বেঁচে থাকে, তার জন্য আরাধনা করা হয় দেবীর। কিন্তু ভারতজুড়ে আজ অসংখ্য নিরন্ন মানুষের হাহাকার। কিন্তু অন্নপূর্ণার দেখা নেই।  সূর্যদেব পাণ্ডবদের দান করেছিলেন 'অক্ষয়পাত্র'। যে পাত্রের খাবার কোনো দিনই শেষ হবেনা। হিন্দুরা এইদিনের পূজা করে বিশেষ কারনে। আসলে মৃত্যুর পরে যাতে বৈকুণ্ঠধামে আশ্রয় মেলে। অক্ষয়তৃতীয়াতেই পুরীর রথযাত্রার জন্য রথ তৈরির কাজ শুরু হয়। 

  দক্ষিণ ভারতের লোকেরা এইদিনে উপোসী থাকেন। শাস্ত্রানুসারে এদিন সোনা, যব, গম, জল ভরা কলস, ফলের রস, দই, ছানার মিষ্টি, ছোলা, চাল, শষ্য ইত্যাদি দান করলে ভালো ফল মেলে। আসলে শ্রীকৃষ্ণ সুদামাকে চিড়ে উপহার দিয়েছিলেন। সেই থেকেই এই উপহার দেওয়ার চল শুরু হয়েছে। অক্ষয়তৃতীয়ার সকালে স্নান সেরে ব্রাম্ভণকে নতুন গামছা, ছাতা, অর্থ, তালপাতার পাখা দান করলে অক্ষয় পূর্ণতা অর্জিত হয়। 

  বৈশাখের শুক্লপক্ষের তৃতীয় দিন হোলো অক্ষয় তৃতীয়া। এই তিথিতে কর্মফলের ক্ষয় নাই। অক্ষয়ফলা তৃতীয়া তিথি বিশেষ। একে 'চিরঞ্জিবি' তিথিও বলে। আমাদের চিরায়ত সংস্কৃতিগুলো একটু চোখ মেলে দেখলে যে চারটি "আবুজা মুহূর্ত" র খোঁজ পাই, এই অক্ষয়তৃতীয়া তাদেরই একটা। বাকিগুলো হোলো বসন্ত পঞ্চমী, ভাদলী নবমী এবং দেবউঠানী একাদশী। হিন্দি এলাকায় অক্ষয়তৃতীয়াকে বলে 'আখা তীজ' বা 'অক্ষরতীজ'। হিন্দুদের সাড়ে তিনটি সর্বাধিক শুভ মুহুর্তের অন্যতম এটি। কার্তিকের শুক্লপক্ষের প্রথম দিনটি আধখানা তিথি। অন্য দুটি পূর্ণ তিথি হোলো পয়লা চৈত্র এবং বিজয়া দশমী।

  সারা ভারত জুড়ে এই দিনটিকে মান্যতা দেওয়া হয় কৃষি ও বানিজ্যের প্রতিভূ হিসেবে। পূর্ব ভারতের ওড়িশা থেকে পশ্চিম ভারতের পাঞ্জাব, হরিয়ানা পর্যন্ত কৃষকরা এই পবিত্র দিনেই লাঙ্গল নিয়ে জমিতে হাল করার কাজ শুরু করে। গুজরাটের চাষিরাও এদিন লাঙলের ফলায় জমিকে বিদ্ধ করে সারা বছর কৃষি সমৃদ্ধির বাসনায়। 

  ১৯৩৬ সালে রেভারেন্ড কে এস ম্যাকডোনাল্ড  লিখেছিলেন, 'হিন্দুদের কাছে এই দিনটি পবিত্র, কারণ শাস্ত্রমতে এই দিন ভিক্ষা ও উপহার দিলে অক্ষয় পুণ্য অর্জিত হয়। ভবিষ্যতে পাপ করলেও সেই পুণ্যফল নষ্ট হয়না। তাই কৃপণরাও হাত উপুড় করে দেন।' এদিন দান করলে পূণ্য অক্ষয়লাভ হয়। আমরা কি পারিনা আজ থেকেই আমাদের পার্শ্ববর্তী দিনদরিদ্র মানুষগুলোর জন্য শ্রীকৃষ্ণের সুদামাকে চিড়ে উপহার দেওয়ার স্মরণে একটু চিড়ে বা অন্য কিছু ওঁদের মুখে তুলে দিয়ে প্রকৃত অক্ষয়তৃতীয়া পালন করতে? তবেই হয়তো অক্ষয়তৃতীয়ার প্রকৃত স্বার্থকতা মিলবে।

আরও পড়ুন 
রমজানের শেষে পশ্চিমাকাশে একফালি বাঁকা চাঁদ উঁকি দিয়ে পরেরদিন যে  ইদ,সেই খুশির বারতা সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দিয়ে যায়।
🍁

Comments

Trending Posts

‘পথের পাঁচালী’ এবং সত্যজিৎ রায় : একটি আলোচনা/কোয়েলিয়া বিশ্বাস

সনাতন দাস (চিত্রশিল্পী, তমলুক) /ভাস্করব্রত পতি

সর্বকালের প্রবাদপ্রতিম কবিসত্তা শক্তি চট্টোপাধ্যায় /প্রসূন কাঞ্জিলাল

ছোটোবেলা বিশেষ সংখ্যা ১১০

শঙ্কুর ‘মিরাকিউরল’ বড়িই কি তবে করোনার ওষুধ!/মৌসুমী ঘোষ

বাংলা ব্যাকরণ ও বিতর্কপর্ব ১৮/অসীম ভুঁইয়া

প্রাচীন বাংলার জনপদ /প্রসূন কাঞ্জিলাল

রাষ্ট্রীয় মূল্যায়ন ও স্বীকৃতি পরিষদ (NAAC) এর মূল্যায়ন ও স্বীকৃতি: উদ্দেশ্য ও প্রস্তুতি - কলেজ ভিত্তিক অভিজ্ঞতা /সজল কুমার মাইতি